চা : রচনা

চা আমাদের বাংলাদেশের মানুষের জন্য একটি জনপ্রিয় পানিয় । চা না খেলে মনে হয় আজকের দিনটা চলবেই না। চা খেলে শরীর আর মন চাঙ্গা থাকে ।

চা : রচনা

সূচনা : এক জাতীয় গাছের কচি পাতা শুকিয়ে ‘ চা পাতা , তৈরি করা হয় । চা পাতা গরম পানিতে ভিজিয়ে , ছেঁকে দুধ ও চিনি মিশিয়ে পানিয় চা তৈরি করা হয় । চা বাংলাদেশের একটি র্অথকারী ফসল ।

কোথায় ভালো জন্মে : চা-গাছ ঢালু জমিতে ভালো জন্মে । এর জন্যে প্রচুর রৌদ ও বৃষ্টিপাতের প্রয়োজন । পাহাড়ী এলাকায় উর্বর জমি চা চাষের জন্য খুব উপযোগী । সিলেট ও র্পাবত চট্রগ্রামে আমাদের অনেক চা বাগান আছে । বড় জায়গা বিসৃত চা বাগান ভালো চাষাবাদ হয় ।

চাষের নিয়ম : জমিতে সারি করে চা-গাছ লাগান হয় । গাছের নিয়মিত যত্ন নেয়া হয় । বাংলাদেশ , ভারত , শ্রীলংকা , চীন , জাপান , ও ব্রাজিলে ভালো চা জন্মে ।

সংগহ পদ্ধতি : চা-গাছ একটু বড় হলে ছেঁটে দেয়া হয় । বছরে তিন/চার বার চা-গাছের কচি পাতা ও কুঁড়ি সংগহ করা হয় । এই পাতা কলের সাহায্যে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় শুকানো হয় । তারপর বিভিন্ন মোড়কে পুরে বাজারে ছাড়া হয়।

উপকারিতা : চা মনকে সতেজ করে । ইহা শরীরের কান্তি দুর করে । তবে অতিরিক্ত চা পান অনেক ক্ষতিকর হতে পারে । অতিরিক্ত কোন কিছুই ভালো না তা আমরা সকলে জানি । প্রত্যেক কিছুরই নির্দিষ্ট সময় সীমা আছে । চা একটি রপ্তানি যোগ্য ফসল । ইহা আমাদের জন্য বৈদিশিক মুদ্রা অর্জন করে । চা এমন এক প্রকার পানিয় যা পান করে সকল প্রকার মানুষ কান্তি দুর করে কাজের প্রতি আগ্রহ নিয়ে আসে । চা হচ্ছে মানুষের মুখের তৃপ্তি মেটায় । চা রপ্তানি করে আমাদের দেশে অনেক র্অথ উপার্জন করে । চা বাগান করে অনেক মানুষের র্কমসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে । চা আমাদের দেশের মানুষের জন্য অনেক মূল্যবান । চায়ের পরিসীমা অনিসীর্কায্য ।

উপসংহার : চা আমাদের শরীরে উদ্দীপনা আনে । আমরা চা দিয়ে মেহেমানদের অভ্যর্থনা করি । চা খেলে কাজে মন বসে। চা খেতে খেতে ভালোই আড্ডা জমানো যায় যা আমাদের দেশের একটা পথা হয়ে গেছে। কাজেই চা আমাদের জন্য সুফলপ্রদ । চায়ের গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম । চা আমাদের জন্য একটি অপরির্হায্য উপাদান ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!