পরের অনিষ্টা চিন্তা করে যেই জন, ভাবসম্প্রসারণ

পরের অনিষ্টা চিন্তা করে যেই জন, ভাবসম্প্রসারণ

পরের অনিষ্টা চিন্তা করে যেই জন, নিজের অনিষ্টা বীজ করে সে বপন ভাবসম্প্রসারণ

মূলভাবঃ নিজের উপকারে যে অন্যের যাত্রাভঙ্গ করে, তারও যাত্রা অন্যের দ্বারা বাধাপ্রাপ্ত হয়।

ভাবসম্প্রসারণঃ কথায় আছে- অন্যের জন্য গর্ত খুঁড়লে সে গর্তে নিজেকেই পড়তে হয়। আসলে সমাজে তিন ধরনের লোক আছে- উত্তম, মধ্যম ও অধম। এদের মধ্যে মধ্যম ও অধম ব্যাক্তিরাই সমাজে বিভিন্ন সমস্যা সৃষ্টি করে। তারা নিজেদের স্বার্থকে অস্বীকার করে। আবার অন্যের ক্ষতির চিন্তায় সদা ব্যস্ত থাকে। তাদের চাহিদা পরণার্থে তারা প্রয়োজনে অন্যের অনিষ্ট সাধনেও পিছপা হয় না। তারা ভুলে যায় রবি ঠাকুরের সেই অমোঘ বাণী- ”তুমি যারে নিচে ফেল, সে তোমারে বাঁধিবে যে নিচে/ পশ্চাতে রেখেছ যারে, সে তোমারে পশ্চাতে টানিছে।” এহেন অসৎকর্ম চর্চায় সমাজ হয় ক্ষতিগ্রস্ত। অথচ অনিষ্ট চিন্তাকারীর কোনো আহামরি লাভ হয় না। মানুষ মানুষের ওপর নির্ভরশীল। এখানে সামনের দিকে এগুতে চাইলে নিজেকে উদার হতে হবে। মনে রাখতে হবে ঢিল মারলে পাটকেল খেতে হয়। এটিই জগতের নিয়ম, এটিই সত্য।

মন্তব্যঃ আসলে অন্যের অনিষ্ট চিন্তা না করে পরোপকারে এগিয়ে যাওয়াই শ্রেয়। এতে নিজের চলার পথ সুগম হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
error: Content is protected !!