স্বার্থপরতা মানব জীবনের উন্নতির পথে ভাবসম্প্রসারণ

স্বার্থপরতা মানব জীবনের উন্নতির পথে ভাবসম্প্রসারণ
অন্যতম প্রতিবন্ধক

মূলভাবঃ স্বার্থপরতা মনুষ্যত্বের পরিপন্থী। একজন স্বার্থপর ব্যক্তিজীবনে অর্থনৈতিক উন্নতি লাভ করলেও জীবনের প্রকৃত উন্নয়ন ঘটাতে পারে না।

ভাবসম্প্রসারণঃ মানুষ সামাজিক জীব। সবার সাথে মিলেমিশে বসবাস করাতেই জীবনের প্রকৃত স্বার্থকতা। আর তাই প্রতিটি মানুষের উচিত সবার সাথে মিলেমিশে জীবনযাপন করা। কিন্তু সমাজে একশ্রেণীর হীনমনা মানুষ বাস করে যারা পরের উপকারের চেয়ে নিজের স্বার্থকেই বড় করে দেখে। তাদের চিন্তাধারা আত্মকেন্দ্রিক। প্রতিটি ক্ষেত্রে তারা স্বার্থকে এতটাই প্রধান্য দেয় যে, তারা ক্রমশ অপরাপর মানুষ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এতে করে তার জীবনের প্রকৃত উন্নতি থেমে যায়। মানুষের প্রকৃত উন্নতি নিহিত তার মনুষ্যত্বের বিকাশে। স্বার্থপরতা মানুষকে পশুতে পরিণত করে। এতে তার চিন্তাশক্তি লোপ পায়, মানবতাবোধ ধ্বংস হয়। তারা সমাজের কোনো কাজেই আসে না। আর মানুষ যদি মানুষের উপকারেই না আসতে পারে তাহলে তার জীবন যাপন মূল্যহীন। এ জাতীয় মানুষকে সবাই ঘৃণার চোখে দেখে। যা তার সার্বিক জীবনকে অবনতির দিকেই ধাবিত করে।

মন্তব্যঃ সবার সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত করে বাঁচার মধ্যেই জীবনের প্রকৃত স্বার্থকতা। এর অন্যথা কখনো কাম্য নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
error: Content is protected !!